লেখালেখিতে শখ? Content Writer হতে চান? জেনে নিন কিভাবে Best Content Writer হবেন খুব অল্প সময়ে

আজ আপনাদের সাথে Search Engine Optimization এর Content Writing নিয়ে কথা বলব। আমরা সবাই জানি যে একটি Website মুলত বিভিন্ন বিষয়ের তথ্য দ্বারা পূর্ণ থাকে।

আর এই তথ্য Website এ অন্তর্ভুক্ত করাই Content Writing for ওয়েবসাইট। লাখো মানুষ এখন Content Writing পেশা কে তাদের আয়ের পথ হিসেবে বেছে নিয়েছে।

আপনি যদি লেখালেখি করতে পারেন লেখালেখিতে ঝোঁক থাকে তাহলে আর দেরি কেন! আজই নেমে পরুন কর্ম ক্ষেত্রে।

 যাই হোক আসল কথায় আসি। ওয়েবসাইট এ কন্টেন্ট থাকা লাগবে কেন? কারন যদি আপনার ওয়েবসাইট এ কোন তথ্যই না থাকে তাহলে আপনার ওয়েবসাইট এ মানুষ যাবে কেন?

আপনার টার্গেট ট্রাফিক অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইট এ এমন কিছু খুজবেন যা সে অন্য কোথাও পাবে না।

এর মানে হচ্ছে আপনার ওয়েবসাইট এ Unique Information থাকা লাগবে।

আর Unique ও Accurate Content Writing এর জন্যে গুগল এ এমন অনেক Tools আছে যা আপনাকে সঠিক ভাবে কন্টেন্ট লেখতে সাহায্য করবে।

তাহলে চলুন আজ আপনাদের সাথে এমনি কিছু টুলস নিয়ে আলোচনা করব, যেগুলোর মাধ্যমে আপনি খুব সহজে নির্ভুল ও অনন্য কন্টেন্ট লেখতে পারবেন।

Grammarly:

প্রথমে আমি Grammarly নিয়ে কথা বলতে চাই। কারন গুগল এ বেশির ভাগ ওয়েবসাইট ইংলিশে লেখা থাকে।

ওয়ার্ল্ডওয়াইড যোগাযোগ এর অন্যতম মাধ্যম এটিই। আমরা MS Word এ লেখার সময় অনেক ধরনের grammar mistake হয়ে থাকে  যা MS Word ধরতে পারেনা।

আর আপনার ওয়েবসাইট এ যদি ভুল থেকে থাকে তা অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইট এর জন্যে ভালো খবর নয়।

আপনি যদি আপনার লেখা Grammarly তে enter করেন, এটি তাত্ক্ষণিকভাবে ২৫০টিরও বেশি ভুল সমাধান করে দিবে যা মাইক্রোসফ্ট ওয়ার্ড দ্বারা সমাধান করা যায় না।

এমনকি আমেরিকান ইংরেজিতে থাকলে এটি সম্পূর্ণ লেখাকে সংশোধন করে। এবং এটি শব্দকে অর্থ পূর্ণ করতে সাহায্য করে যা অন্যান্য tools দ্বারা সম্ভব হয়ে উঠে না।

Hemingway:

আমাদের সেরা content writing tools এর তালিকায় শীর্ষস্থানীয় tool হিসেবে বিবেচিত Hemingway

Online editing tools গুলোর মধ্যে এটি লেখা উপযুক্ত ভাবে editing এর জন্য লেখক এবং ব্লগারদের মধ্যে খুব জনপ্রিয় হয়ে গেছে। 

এটি বানান ভুল নিরধারকের মতো কিছুটা কিন্তু তা এর স্টাইলের দিক থেকে।

এটি নিশ্চিত করে যে পাঠকরা জটিল লেখা লিখেছে নাকি এবং তা কতটুকু পড়ার উপযোগী।

হেমিংওয়ে কঠিন বাক্য এবং বাক্যাংশগুলিকে হাইলাইট করে যা খুব জটিল, অতিরিক্ত কঠিন বাক্য গুলোকে সহজ করতে এবং প্যাসিভ ভয়েস নির্মাণ করতে পরামর্শ দিয়ে থাকে।

এর কাজই হলো লেখাকে স্পষ্ট  ও সহজ করা। কারণ আপনার লেখা যত সহজ হবে ততই ট্রাফিক বারবে।

HubSpot’s Blog Topic Generator:

[emaillocker]

সাধারণত HubSpot’s Blog Topic Generator আপনাকে লেখার বিষয়বস্তু সম্পর্কে ধারনা দিবে। আপনি আপনার পছন্দের ৩টি keyword  প্রবেশ করাতে পারবেন।

এটি মুলত একটি ফ্রি ভার্সন টুল যা সেকেন্ডের মধ্যে ব্লগ পোষ্ট আইডিয়া দিয়ে থাকে।

এটা আপনাকে দুই ভাবে আইডিয়া দিয়ে থাকবেঃ

  • Year worth of blog post ideas
  • Week worth of blog post ideas.

এর থেকে আপনি আপনার ব্লগ পোষ্টের জন্যে অনেক ধারণা পাবেন। ফলে আপনাকে বেশির ভাগ সময় কি লেখবেন তা ভাবতে হবে না।

এতে খুব সহজে আমরা সময় নষ্ট না করে আমাদের কাঙ্খিত topic পেয়ে যাব।

Calmly Writer:

Calmly Writer হচ্ছে এমন একটি ইডিটর যা ডিজাইন করা হয়েছে।

আপনি কি চান তাতে ফোকাস করার জন্যে এবং আপনি যা লেখতে চান তাকে সহজ ও শ্রুতিমধুর বানানোর জন্যে।

এখানে কেবলমাত্র কিছু বেসিক টুলস আছে যা রাইটিং এর জন্যে ব্যবহার হয়।

যেমনঃ বিভিন্ন subheadings, quotes, and links insert করা যায়।

অন্যান্য অনেক tools মতো এটি ক্লাউড সেভিং এবং সুন্দর সুন্দর ডিজাইন সরবরাহ করে।

Headline Analyzer by CoSchedule:

কন্টেন্ট এ কোন বিষয়বস্তু তুলে ধরা হয়েছে তা একমাএ তার টাইটেল দেখলে বোঝা যায়।আর আপনার main keyword টি ও সেই টাইটেল এ থাকতে হবে যদি আপনি গুগল এ র‍্যাঙ্ক করতে চান।

আর এইসব কিছুর সুবিধা দেয় Headline Analyzer যেখানে আপনি আপনার keyword কতটুকু স্ট্রং তা আপনাকে ডিটেক্ট করে দিবে।

কেবল তাই ই নয়, এটি আপনাকে আপনার টাইটেল এর emotion, common, uncommon ও power ইত্যাদির সম্বলিত percentage দিয়ে থাকে।

আমার বলার মানে হচ্ছে আপনার টাইটেল এর স্কোর দিবে। আর এই স্কোর ৭০% এর বেশি হওয়াই ভাল।

 এটাই শুধু নয় এটি আপনাকে emotion, common, uncommon word এর জন্যে আলাদা আলাদা ফাইল প্রদান করে।

এতে আপনার জন্যে টাইটেল এর শব্দ চয়েস করা আরো সহজ হয়ে উঠবে।

Duplichecker:

এটি আমাদেরকে content কতটা unique তা detect করতে সাহায্য করে। আমরা যেই  কন্টেন্ট লিখব তা অবশ্যই অন্য ওয়েবসাইট এর কন্টেন্ট থেকে  আলাদা হতে হবে।

আর তাই এটি আমাদের ডিটেক্ট করতে সাহায্য করবে যে আমাদের কন্টেন্ট এ কত percent plagiarism আছে।

তার সাথে আমরা Duplichecker এর মাধ্যমে Grammarly ব্যবহার করতে পারব। তাহলে বুঝতেই পারছেন Duplichecker ব্যবহার করা কতটা কার্যকরী।

যদি আপনার কন্টেন্ট এর কোন লেখা অন্য কারো লেখার সাথে মিলে যায় তখন এটি আপনাকে সেই ওয়েবসাইট দেখাবে এবং আপনাকে আপনার লেখা বদলানোর জন্যেও suggest করবে।

আপনার লেখাটা কি friendly নাকি formal অথবা informal  ইত্যাদি আপনাকে suggest করবে।

Canva:

Canva নির্দ্বিধায় একটি চমৎকার tool যেকোন ধরনের ছবির জন্যে। আপনার ওয়েবসাইট এ তথ্যের সাথে সম্পরকযুক্ত ছবি থাকা আবশ্যক।

কিন্তু কপি পেস্ট করা ছবি গুগল এ র‍্যাঙ্ক করার জন্যে প্রতিকুল। তাই আমদের দরকার unique picture ওয়েবসাইট এর জন্যে।

ক্যানভা আমাদের  unique ছবি দেয়, তার সাথে আমরা যেন নিজে থেকে যেন ছবি customize করতে পারি সেই সেবা প্রদান করে।

ক্যানভায় আশ্চর্যজনক ডিজাইনের জন্য সবকিছু রয়েছে:

বিনামূল্যে এবং অর্থ প্রদানের মাধ্যমে চিত্র, ফটো ফিল্টার, আইকন এবং সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট, চিঠি, ব্রোশিওর, পোস্টকার্ড এবং আরও অনেক কিছু। 

এখানে কন্টেন্ট টাইপ একটি বিশাল ডাটাবেস রয়েছে যা professional ডিজাইনের বিশাল তালিকা (বেশিরভাগ বিনামূল্যে) এর সাথে অনেক  গ্রাফিক্সও  সরবরাহ করে থাকে। 

সমস্ত তৈরি ডিজাইন স্বয়ংক্রিয়ভাবে সংরক্ষিত হয় এবং ডাউনলোডের জন্য কোন খরচ নেই।

Copyscape:

কপিস্কেপ বিনামূল্যে ব্যবহার করা যায় এবং লেখাতে  কোনও নকল রয়েছে কিনা তা পরীক্ষা করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। 

আপনাকে কেবল একটি পোস্টের ইউআরএল লিখতে হবে এ্টি আপনাকে দেখাবে যে আপনার লেখাটি unique কিনা। 

Copyscape আপনাকে ডিটেক্ট করতে সাহায্য করবে যে আপনি এটা অন্য কোথাও থেকে নিয়েছেন কিনা এবং অন্য কোথাও ব্যবহৃত হচ্ছে কিনা তাও এই tool বলতে সহায়তা করে। 

কপিস্কেপ প্রত্যেকের জন্য প্রয়োজনীয় বিষয় যারা content creation activities বা guest blog posts গুলিকে আউটসোর্স করে।

WordCounter:

WordCounter social media marketers দের জন্য খুবই সহায়ক একটি টুল। যদি কেউ তার পণ্য বা service launch এর প্রচার পরিচালনা করে।

তখন লেখকরা ওয়ার্ড কাউন্টারের সাহায্যে character এবং শব্দগুলো count করতে পারেন। 

এই টুল এর পেস্ট করার অপশন এ আপনার কাঙ্ক্ষিত লেখাটি পেস্ট করলেই হবে, এবং এ্টি আপনার তথ্য গুলো সংরক্ষণ ও করবে।  

তার সাথে এটি আপনার বানান এর ভুল গুলোও ধরিয়ে দেয় এবং কঠিন শব্দকে সহজ ও করে।   

পরিশেষে আমরা এই বলতে পারি যে, কন্টেন্ট রাইটিং এর জন্যে গুগল এ এমন অনেক টুলস রয়েছে যা একজন কন্টেন্ট রাইটার এর কাজ কে আরো সহজ ও সঠিক করতে সাহায্য করবে। আশা করি উপরোক্ত টুলস গুলো আপনাদের কন্টেন্ট লেখার সময় অনেক কাজে আসবে। আর একটি কথা সবসময় খেয়াল রাখবেন কপি রাইট কন্টেন্ট এর জন্যে গুগল আপনাকে পেনাল্টি ও দিতে পারে। তাই সবসময় প্লেজারিজম ফ্রি কন্টেন্ট লেখবেন তাহলেই আপনি একজন ভালো কন্টেন্ট রাইটার হয়ে উঠতে পারবেন।

[/emaillocker]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *